কলা উৎপাদন

কলা সংগ্রহ ও করণীয়

ফল সংগ্রহঃ ঋতুভেদে রোপণের ১০-১৩ মাসের মধ্যে সাধারণত সব জাতের কলাই পরিপক্ক হয়ে থাকে। বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চাষ করলে কলা গায়ের শিরাগুলো তি-চতুর্থাংশ পুরো হলেই কাটতে হয়। তাছাড়াও কলার অগ্রভাগের পুষ্পাংশ শুকিয়ে গেলে বুঝিতে হবে কলা পুষ্ট হয়েছে। সাধারণত মোচার আসার পর ফল পুষ্ট হতে আড়াই থেকে চার/৪ মাস সময় লাগে। কলা কাটানোর পর কাদিঁ শক্ত [...]

কলা সংগ্রহ ও করণীয়২০২১-০২-১৮T২৩:৪৫:১০+০৬:০০

কলা চাষে অন্যান্য পরিচর্যা

পরিচর্যা : সেচ, আগাছা পরিষ্কার, তেউড় অপসারণ ইত্যাদি চারা রোপণের পর মাটিতে পর্যাপ্ত রস না থাকলে তখনই সেচ দেয়া উচিত। এ ছাড়া, শুকনো মৌসুমে ১৫-২০ দিন পর সেচ দেয়া দরকার। বর্ষার সময় কলা বাগানে যাতে পানি না জমতে পারে তার জন্য নালা থাকা আবশ্যক। তাছাড়া গাছের গোড়া ও নালার আগাছা সব সময় পরিষ্কার রাখা প্রয়োজন। মোচা [...]

কলা চাষে অন্যান্য পরিচর্যা২০২১-০২-১৮T২৩:৪৫:২৯+০৬:০০

কলা চাষে সার ব্যবস্থাপনা

গাছ প্রতি নিম্নরুপ সার কলা চাষের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে - সারের নাম সারের পরিমাণ মন্তব্য জৈব সার/পচা গোবর ১৫-২০ কেজি অধিকতর তথ্য জানতে এখানে ক্লিক করুন। এলাকা ও মৃত্তিকাভেদে এই হার পরিবর্তনশীল। ইউরিয়া ০.৪ কেজি টিএসপি ০.৬ কেজি পটাশ ০.৫-০.৬৫ কেজি জিপসাম ০.২-০.৩ কেজি সার প্রয়োগ পদ্ধতিঃ পচা গোবর, টিএসপি ও জিপসামের ৫০% [...]

কলা চাষে সার ব্যবস্থাপনা২০২১-০২-১৯T১৯:৩৮:৪৯+০৬:০০

কলার বপন/রোপণ পদ্ধতি

জমি তৈরী ও গর্ত খননঃ চারা রোপণের এক মাস আগে গর্ত করতে হবে। গর্তের আকার হবে = ২ ফুট × ২ ফুট × ২ ফুট। গর্তের মাটির সাথে জৈব সার, টিএসপি ও পটাশ সার মিশিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। চারা রোপণঃ কলার চারা বছরে তিন মৌসুমে রোপণ করা যায়- ক) ১ম রোপণঃ আশ্বিন-কার্তিক (মধ্য সেপ্টেম্বর-মধ্য নভেম্বর) খ) ২য় রোপণঃ [...]

কলার বপন/রোপণ পদ্ধতি২০২১-০২-১৯T১৯:৩৯:০৫+০৬:০০

কলার জাত পরিচিতি

ব্যবহারের উপর ভিত্তি করে কলার জাতগুলিকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়- ক) পাকা কলাঃ অমৃতসাগর, সবরী, চাঁপা, কবরী, সিঙ্গাপুরী বা কাবুলী, এটে বা বিচিকলা, বারি কলা-১ এবং মেহেরসাগর। খ) কাচা/আনাজী কলাঃ ভেড়ারডগ, চোয়ালপাউশ, বড়ভাগনে, বেহুলা, মন্দিরা, বিয়ের বাতি, কাপাসি, কাঁঠালী, হাটহাজারী, আনাজী, বারি কলা-১, বারি কলা-২, বারি কলা-৩ জাতের নাম ছবিতে ক্লিক করুন ফুল আসা [...]

কলার জাত পরিচিতি২০২১-০২-১৯T১৯:৩৬:৫৩+০৬:০০
Go to Top