অন্তর্বর্তীকালীন পরিচর্যাঃ

  • সময়মত নিড়ি দিয়ে আগাছা পরিষ্কার করে সাথে সাথে মাটির চটা ভেঙ্গে দিতে হবে;
  • খরা হলে প্রয়োজন অনুযায়ী সেচ দিতে হবে। পানি অভাব হলে গাছের বৃদ্ধির বিভিন্ন অবস্থায় এর লক্ষণ প্রকাশ পায় যেমন প্রাথমিক অবস্থায় চারার বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যাওয়া, পরবর্তীকালে ফুল ঝরে যাওয়া, ফলের বৃদ্ধি বন্ধ হওয়া ও ঝরে যাওয়া ইত্যাদি;
  • চিচিঙ্গার বীজ উৎপাদনের সময় খেয়াল রাখতে হবে ফল পরিপক্ক হওয়া শুরু হলে সেচ দেয়া বন্ধ করে দিতে হবে;
  • বাউনি দেয়া চিচিঙ্গার প্রধান পরিচর্যা। চারা ৮-১০ ইঞ্চি উঁচু হতেই সোয়া ৩ ফুট থেকে ৫ ফুট উঁচু মাচা তৈরি করতে হবে এবং বাউনির ব্যবস্থা করতে হবে। বাউনি দিলে ফলন বেশি ও ফলের গুনগত মান ভাল হয়;
  • গাছের গোড়া থেকে ডালপালা বের হলে সেগুলো কেটে দিতে হয় এতে গোড়া পরিষ্কার থাকে, রোগবালাই ও পোকামাকড় উৎপাত কম হয়;
  • জুন-জুলাই মাস থেকে বৃষ্টি শুরু হওয়ার পর আর সেচের প্রয়োজন হয় না। জমির পানি নিকাশ নিশ্চিত করার জন্য বেড ও নিকাশ নালা সর্বদা পরিষ্কার করে রাখতে হবে।

তথ্যসূত্রঃ কৃষি প্রযুক্তি হাত বই (৬ষ্ঠ সংস্করণ), বারি, গাজীপুর

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারী ১৫, ২০২১