পোকার আক্রমণের লক্ষণ:

[slider width=”100%” height=”100%” class=”” id=””]
[slide type=”image” link=”” linktarget=”_self” lightbox=”yes”]http://agrivisionbd.com/wp-content/uploads/2015/10/stink-bug2-1.jpg[/slide]
[slide type=”image” link=”” linktarget=”_self” lightbox=”yes”]http://agrivisionbd.com/wp-content/uploads/2015/10/stink-bug-1.jpg[/slide]
[/slider]

এ পোকা পূর্ণ বয়স্ক ও নিস্ফ উভয় অবস্থায় ক্ষতি করে । দুধ আসা অবস্থায় ক্ষতি বেশী করে । ফলে গমের গায়ে দাগ হয় ও গম চিটা হয় ।

আক্রমণের আগে করণীয়ঃ

ক) অতি বিলম্বে বা অতি অগ্রিম গম চাষ করবেন না;
খ) ক্ষেত আগাছা মুক্ত রাখুন;
গ) নিয়মিত মাঠ পরিদর্শন করে আক্রমণের শুরুতেই ব্যবস্থা নিন

আক্রমণ হলে করণীয়ঃ

আক্রমণ বেশি হলে যে কোন একটি বালাইনাশক ব্যবহার করা যেতে পারে। এ পোকার জন্য কোন অনুমোদিত কীটনাশক নেই। তবে ধানের গান্ধী পোকার (Rice Bug) অনুমোদিত কীটনাশকগুলো হলো ঃ

গ্রুপের নাম বানিজ্যিক নাম ও ব্যবহার মাত্রা
ক্লোরোপাইরিফস ডারসবান ২০ ইসি (এপি-৯৩) বিঘা প্রতি ১৩৪ মিলি হারে অথবা
কার্বারিল সেভিন ৮৫ wp (এপি-৩৩৮) বিঘা প্রতি ২২৭.৫ গ্রাম হারে অথবা
ফেনিট্রথিয়ন ফেনিটক্স ৫০ ইসি (এপি-৪) বিঘা প্রতি ১৩৪ মিলি হারে অথবা
ডাইমেথোয়েট রগর ৪০ L (এপি-১৪১) অথবা পারফেকথিয়ন ৪০ ইসি (এপি-৫৪৯) বিঘা প্রতি ১৫০ মিলি হারে অথবা
আইসোপ্রোকার্ব (এমআইপিসি) মিপসিন ৭৫ wp (এপি-৫৩৯) বিঘা প্রতি ১৫০ মিলি হারে অথবা
ম্যালাথিয়ন ফাইফানন ৫৭ ইসি (এপি-১০) @ ১৫০ মিলি/বিঘা অথবা হিলথিয়ন ৫৭ ইসি (এপি-৩৭) বিঘা প্রতি ১৩৪ মিলি হারে প্রয়োগ করতে হবে


তথ্যসূত্রঃ বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি), গাজীপুর এবং Farmer’s window

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ১২, ২০১৬