বংশবিস্তারঃ 

বীজ, শাখা কলম, শেকড়ের সাকার দ্ধারা বংশবিস্তার করা হয়। ডালিমের চারা উৎপাদনের সবচেয়ে সহজ ও সাধারণ পদ্ধতি হচ্ছে শাখা কলম পদ্ধতি। এপদ্ধতিতে কলম তৈরির জন্য এক বছর পূর্ণ  বয়সের শক্ত ডাল নির্বাচন করতে হবে যা দৈর্ঘ্যে ২৫-৩০ সেন্টিমিটার হতে হবে। গুটিকলম  পদ্ধতিতেও ডালিমের চারা উৎপাদন করা যায়। কাটিং বা শাখা কলম  এর নিচের অংশ ২০০০ পিপিএম ইনডোল অ্যাসেটিক অ্যাসিড (IBA) বা ৩০০০ পিপিএম ইনডোল বিউটিরিক অ্যাসিড (IBA)-এর পানির মিশ্রণে চুবিয়ে নিলে সবচেয়ে ভালো হয় কেননা, এতে শিকড় গজানোর হার ত্বরান্বিত হয়। গুটিকলম  পদ্ধতিতে চারা উৎপাদনের  ক্ষেত্রে শিকড় গজানোর হার ত্বরান্বিত করার জন্য ১০,০০০ পিপিএম (IBA) এর পানির মিশ্রণ ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

চারা রোপণঃ 

জুন-জুলাই মাস উপযুক্ত সময়। ১৬ ফুট × ১৬ ফুট দূরত্বে স্পেসিং দিয়ে গাছ লাগাতে হবে। একটি গর্ত/মাদার আকার হবে ২ ফুট × ২ ফুট × ২ ফুট। গর্ত তৈরীর পর ১৫ দিন রোদ্রে শুকাতে হবে। এরপর প্রতি গর্তে ১৫ কেজি পচা আবর্জনা সার মাটির সাথে মিশিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। তার ১৫ দিন পর চারা লাগাতে হবে।

উৎসঃ agricultralinfo.blogspot.com & jeeon.com

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারী ১৯, ২০২১