অন্তর্বর্তীকালীন পরিচর্যা :

তরমুজের ভালো ফলনের জন্য নিম্নলিখিত অর্ন্তবর্তীকালীন পরিচর্যাগুলো সময় মতো সম্পন্ন করতে হবে –

১. আগাছা দমন :

বীজ বপন বা চারা রোপণের ১৫-২০ দিন পর থেকে তরমুজ ক্ষেতে কমপক্ষে ২ থেকে ৩ বার আগাছা দমনের ব্যবস্থা নিতে হবে।

২. সেচ ব্যবস্থাপনা :

বীজ বপনের পর অঙ্কুরোদ্গমের জন্য একটি হালকা সেচ দেয়া দরকার এবং পরবর্তী সময়ে রসের অভাব হলে ৮-১০ দিন পরপর জমির অবস্থা বুঝে সেচ দিতে হবে। শুকনো মৌসুমে সেচ দেয়া খুবই প্রয়োজন। গাছের গোড়ায় যাতে পানি লাগে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। ফুল উৎপাদন ও ফল বড় হওয়ার সময় জমিতে পর্যাপ্ত পরিমাণ রস থাকতে হবে। তরমুজের ক্ষেত্রে প্রাথমিক অঙ্গজ বৃদ্ধি পর্যায়, ফুল উৎপাদন ও ফল বড় হওয়ার সময় অবশ্যই সেচ দিতে হবে। এ সময় রসের অভাব হলে ফলন ও ফলের গুণগত মান বিনষ্ট হতে পারে।

৩. অঙ্গজ ছাঁটাই :

প্রত্যেকটি গাছে চারটি শাখা রেখে বাকিগুলো কেটে দিতে হবে। গাছের শাখার মাঝখানের গিটে যে ফল হয় সেটি রাখতে হয়। চারটি শাখায় চারটি ফলই যথেষ্ট।

৪. পরাগায়ন :

সকাল বেলা স্ত্রী ও পুরুষ ফুল ফোটর সঙ্গে সঙ্গে স্ত্রী ফুলকে পুরুষ ফুল দিয়ে পরাগায়িত করে দিলে ফলন ভালো হয়।

তথ্যসূত্রঃ http://sesu.alokitobangladesh.com

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারী ১৯, ২০২১